Page Nav

HIDE

Grid

GRID_STYLE

Classic Header

{fbt_classic_header}

সদ্য পাওয়া

latest

সবাই যখন সেল্ফি তুলছে,পেছনে আরেক বন্ধু ডুবে মারা যাচ্ছে

বন্ধুরা সেলফি তুলছে। পিছনে পানিতে ডুবে মারা যাচ্ছে তাদের সঙ্গে ঘুরতে আসা আরেক বন্ধু। তবুও টের পেলো না বন্ধুর আর্তনাদ? এমনই মর্মান্তিক ঘটনা ঘ...

বন্ধুরা সেলফি তুলছে। পিছনে পানিতে ডুবে মারা যাচ্ছে তাদের সঙ্গে ঘুরতে আসা আরেক বন্ধু। তবুও টের পেলো না বন্ধুর আর্তনাদ? এমনই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে ভারতের বেঙ্গালুরুরের ন্যাশনাল কলেজের ১৭ বছরের ছাত্র বিশ্বাসের সঙ্গে। সেলফিতে দেখা যায় তার বন্ধুরা মজা করে ছবি তুলছে। তার ঠিক পিছনে কিছুটা দূরে ডুবন্ত অবস্খায় মাথাটা দেখা যাচ্ছে।
রোববার ন্যাশনাল কলেজের এক পিকনিকে বিশ্বাস তার বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে গিয়ে পুকুরে নামলে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনার শিকার হয়। বলা হয় পুুকুরটি প্রায় দশ ফিটের বেশি গভীর ছিল।
বন্ধুদের দেয়া তথ্যমতে, সবাই তাকে নোটিশ না করে পুকুর ছেড়ে উঠে এক মন্দিরে বেড়াতে যায়। সেখানে মোবাইলে ছবিগুলো দেখার সময় একজন খেয়াল করেন যে, তাদের সেলফিতে পিছনে তাদের বন্ধু বিশ্বাস ডুবন্ত মাথা পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। পরে ছাত্ররা স্থানীয় পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে পুকুর থেকে বিশ্বাসের মরদেহ উদ্ধার করে।
বিশ্বাসের পরিবার কলেজের গাফিলতিকে দায়ি করে বলেন, কলেজ ট্যুরে কলেজ কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব অবহেলা এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকায় এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে।
তবে ন্যাশনাল কলেজ কর্তৃপক্ষের পক্ষ ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভিকে জানায়,  ২৫ জন ছাত্র এক জন শিক্ষকের অধীনে কলেজ ট্যুরে যায়। তারপর এই দুর্ঘটনার শিকার হন। এদিকে সোমবার বিশ্বাসের অভিভাবক এবং ছাত্ররা কলেজের বিরুদ্ধে প্র্রতিবাদ করেছে। কলেজের পক্ষ থেকে বিশ্বাসের মৃত্যুর কারণ জানতে তদন্ত করার আশ্বাস পাওয়ার পর তারা প্রতিবাদ থামিয়ে চলে যান।
নিহত বিশ্বাসের বাবা গোবিন্দ পেশায় একজন অটো চালক। তিনি বলেন, এবিষয়ে একটি পুলিশ ফাইল করা হলেও এখন পর্যন্ত কলেজ কিংবা কোন ব্যাক্তির বিরুদ্ধে কোন ধরণের পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি।