Page Nav

HIDE

Grid

GRID_STYLE

Classic Header

{fbt_classic_header}

সদ্য পাওয়া

latest

‘দুই প্রতিবেশী দেশ, আমরা সবসময় এক হয়ে চলতে চাই’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে কিছু সমস্যা থাকলেও ধীরে ধীরে সেগুলোর সমাধান হচ্ছে। বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে আলোচনার মা...


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে কিছু সমস্যা থাকলেও ধীরে ধীরে সেগুলোর সমাধান হচ্ছে। বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যাগুলো সমাধান করা সম্ভব।
শুক্রবার ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘বাংলাদেশ ভবন’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা এ কথা বলেন। এর আগে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ সমাবর্তনে প্রধানমন্ত্রী বিশেষ অতিথি হিসেবে যোগ দেন।
অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা দুই প্রতিবেশী দেশ এক হয়ে চলতে চাই। প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে সমস্যা থাকতে পারে। কিন্তু একে একে আমরা সব সমস্যার সমাধান করেছি। এখনও কিছু কথা আছে। কিন্তু সে কথা এখন বলে এখানকার পরিবেশ নষ্ট করতে চাই না। কিন্তু আমরা বিশ্বাস করি, যে কোনো সমস্যা বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করতে পারব।
প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশকে একটি মর্যাদাশীল দেশ হিসেবে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরা এবং বাংলাদেশের মানুষ, দরিদ্র বুভুক্ষু মানুষের জন্য, শোষিত-বঞ্চিত মানুষের জন্য, আমার বাবা সারা জীবন সংগ্রাম করেছেন। তাঁর আকাঙ্ক্ষাটা যেন পূর্ণ করতে পারি, সেটাই আমি আশা করি। আমি বিশ্বাসী, আমাদের পাশে ভারতের মতো বন্ধু দেশ আছে। অন্যান্য প্রায় সব দেশ থেকে আমরা যথেষ্ট সহযোগিতা পাচ্ছি। কাজেই আমরা মনে করি, আমাদের অভিষ্ট লক্ষ্যে আমরা পৌঁছাতে পারব।’
প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমারের রোহিঙ্গা সংকটের বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে আমরা আশ্রয় দিয়েছি। নির্যাতিত মানুষকে আশ্রয় না দিয়ে পারেনি বাংলাদেশ। প্রয়োজনে নিজেদের খাবার ভাগ করে খাওয়াব। আমরা চাই দ্রুত তারা দেশে ফিরে যাক। বাংলাদেশ ভবনে নির্মিত হয়েছে আধুনিক থিয়েটার, প্রদর্শনী কক্ষ ও বিশাল লাইব্রেরি।
পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধনের মাধ্যমে দুই দেশের সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হবে বলে জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বাংলাদেশ ও ভারত দুটি আলাদা দেশ হলেও দুই দেশের সংস্কৃতির মিল রয়েছে জানিয়ে নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘এই ভবন বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কে নতুন মাত্রা দেবে।’
শুক্রবার সকালে কলকাতা বিমানবন্দরে নেমেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শান্তিনিকেতনে যান। সেখানে তাঁকে স্বাগত জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। পরে শেখ হাসিনা বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

No comments